মুক্তিযুদ্ধের গল্প – একাত্তর

মুক্তিযুদ্ধের গল্প -  একাত্তর
মোঃ লিখন হাসান

বিকেলের সূর্যটা পশ্চিম আকাশে হালতে শুরু করেছে।আমি নদীর পাড়ে বস সূর্য ডোবা দেখছি!কি সুন্দর গাঢ় লাল রঙের সূর্য।আমার মনটা যেনো কেড়ে নিচ্ছে।সূর্যটাকে ক্ষাণিক বড় দেখাচ্ছে।

নদীতে মাঝি নেই।ঘাটে ছোট একটা পাল তোলা নৌকা আর একটা ডিঙ্গি নৌকা বাধা।একা বসে বসে কয়েক মাস আগের কথা মনে করছি।কয়েক মাস আগেও তো আমরা সবাই মিলে স্কুলে যেতাম।সবাই মিলে কত না হৈহুল্লাের করতাম।আম বাগানে আম পাড়া,নদীতে লাফালাফি,কত না সুন্দর ছিল সেই মূহুত্ব গুলো।হঠাৎ কি হলো সেই রাতে!চারদিকে হাহাকার,নিস্তব্ধ প্রকৃতি,পাখি ডাকে না,ঝিঝি পোকারা আর ঝি ঝি সুরে গান গায় না।  সেদিন রাতে আমার বড় চাচা পাকিস্তানী বাহিনী গণহত্যার শিকার হন।আমাদের গ্রামের অনেকের ঘর-বাড়ি জ্বালিয়ে দেওয়া হয়।লুট করা হয় সম্পত্তি গৃহবধূ এবং যুবতী মেয়েদের ধরে নিয়ে ধর্ষণ করা হয়।যুবক ছেলেদের নির্মমভাবে গুলি করে হত্যা করা হয়।আরও নানা ধরনের অত্যাচার জেল-জুলুম তো আছেই।এই এক ভয়াবহ দূঃস্বপ্ন আমাদের বাঙালীর অন্তরে গেঁথে আছে।

সূর্য প্রায় ডুবে যাচ্ছে!মাঝ নদীতে হঠাৎ দেখা যাচ্ছে একটা নৌকা আসছে।নৌকায় দশ-বারো জন যুদ্ধা অশ্র-সশ্র নিয়ে এদিকেই আসছে।আমি তাদের দেখে উঠে নৌকার দিকে এগিয়ে যাচ্ছি;

নৌকাতে আমাদের গ্রামের সাতজন যোদ্ধা সহ আর কয়েকজন যোদ্ধা ছিল।

তাদের মাঝে আমাদের প্রতিবেশী আহাদ চাচা আমাকে ডেকে বললেন।তোর চাচী আর তিন বছরের মেয়ে কুলসুম কেমন আছে বাবা।

আমি বললাম ওরা সবাই ভালো আছে।

আহাদ চাচা আর তার সঙ্গীরা সবাই এবার আমাদের গ্রামেই থাকবে।আমিও তাদের নানা কাজে সাহায্য করব।তাদের খবর এনে দিব।তারপর সবাই মিলে এক সাথে আক্রমণ করে পাকিস্তানীদের কয়েকটি অস্থায়ী ক্যাম্প জ্বালিয়ে দিয়েছি।এবার খবরটা বেশ এবার খবরটা বেশ মারাক্ত ছিল।তাদের আক্রমণ করাটা বেশ কঠিন হয়ে পরেছে।চারদিকে পাকিস্তানী সৈন্য বাহিনী ঘিরে রেখেছে আমাদের এদিকে মুক্তিবাহিনী সংখ্যায় কম। আহাদ চাচা ও তার সঙ্গিরা মিলে বুদ্ধিবল কাজে লাগিয়ে পাকিস্তানী বাহিনী সাথে যুদ্ধ মোকাবেলা শুরু করল।প্রায় তিন ঘন্টা যুদ্ধ শেষে পাকিস্তানী বাহিনী কিছু সময়ের জন্য  লেজ গুটিয়ে পালিয়েছে।এদিকে মুক্তিবাহিনীর চার জন সেনা শহিদ হয়েছে।আক্রান্ত হয়েছে তিন জন।আহাদ চাচারও গুলি লেগেছে।মন হয় তিনি আর বাঁচবেন না।কিছু সময় পর আহাদ চাচার শরির নিস্তেজ হয়ে পড়েছে মন দেহে আর প্রান নেই।চাচার সঙ্গিরা চোখের জল মুছে শহিদের কাফন-দাফন সম্পন্ন করে আবার দ্বিতীয় ধাপে যুদ্ধ শুরু করল।চার-পাঁচ দিন এক টানা যুদ্ধ চলল।অবশেষে ঘনিয়ে এলো পাকিস্তানীদের পরাজয়।আমরা জয়ী হলাম।

২.
স্বাধীনতা অর্জন করলাম আমরা।পেলাম একটি আপন দেশ।একটি আপন পতাকা।এই সবুজ মাঠ-ঘাট সবই যেনো চির আপন।আপন আমার জন্মভূমি।শত কোটি বীরাঙ্গনার কাছে এই দেশের প্রতিটি মানুষ ঋণী।আমি চির কৃতজ্ঞ  জানাই এই দেশের প্রতিটি বীর যুদ্ধাদের।আমি শ্রদ্ধা জানাই বীরাঙ্গনা মা বোনদের।দীর্ঘায়ু কামনা করি এখন যে বীর যুদ্ধা বেঁচে আছে তার তোমাদের জন্যই আজ আমরা স্বাধীন।

“বিনা অনুমতিতে এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা কপি করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ। কেউ যদি অনুমতি ছাড়া লেখা কপি করে ফেসবুক কিংবা অন্য কোন প্লাটফর্মে প্রকাশ করেন, এবং সেই লেখা নিজের বলে চালিয়ে দেন তাহলে সেই ব্যাক্তির বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বাধ্য থাকবে
ছাইলিপি ম্যাগাজিন।”

সম্পর্কিত বিভাগ

পোস্টটি শেয়ার করুন

Facebook
WhatsApp
Telegram
সিনেমা পর্যালোচনা- Chalk n Duster : সেলুলয়েডের ফিতায় উন্মোচিত শিক্ষার মুনাফালোভী দিক

সিনেমা পর্যালোচনা- Chalk n Duster : সেলুলয়েডের ফিতায় উন্মোচিত শিক্ষার মুনাফালোভী দিক

পর্যালোচক : আদনান সহিদ Chalk n Duster ভারতীয় শিক্ষা ব্যবস্থার এক উদ্বেগজনক অংশকে প্রতিনিধিত্ব করে বলিউডে নির্মিত একটি  হিন্দি ড্রামা ধাঁচের সিনেমা।২০১৬ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত সিনেমাটির ...
এবার মরু: চতুর্থ পর্ব

এবার মরু: চতুর্থ পর্ব

গৌতম সরকার আজ এলাম সাম বালিয়াড়ি থেকে জয়সলমের হয়ে যোধপুর। এটাই আমাদের শেষ গন্তব্য। কয়েকদিন ধরেই বিপ্রতীপে পথ চলা শুরু হয়ে গেছে। ট্যুর শেষ হতে ...
কবিতা - কবি

কবিতা – কবি

ইউসুফ মোল্লা   আমি দূরদর্শন দেখিনি আজও,  শুনেছি; অনেক কিছু রয়েছে বানানো।  কিন্তু, আমি আমার প্রিয় দাদাকে দেখেছি,  শুনেছি তাঁর মুখে কবিতা,  যা পৃথিবীতে আগে ...
ছেলেবেলার ঈদের খুশি

ছেলেবেলার ঈদের খুশি

ইমতিয়াজ সুলতান ইমরান কিছু স্মৃতি, কিছু প্রীতি, যায় না ভোলা কভু স্মৃতির মায়া, প্রীতির মায়া, হয় না জবু-থবু। কিছু স্মৃতি বিশেষ ক্ষণে মনটা নাড়ে ঠিকই ...
হৃদয়ে বঙ্গবন্ধু

হৃদয়ে বঙ্গবন্ধু

মোঃ রাসেল শেখ হে প্রিয় জ্বালাময়ী বঙ্গ- তোমার তরে,সহস্রবারে করি শির নত- যাহা আজও অব্দি রয়েছে বহিবিশ্বে চির উন্নত অক্ষত। পেয়েছি তোমায়-ত্রিশ লক্ষ শহীদের রক্ত ...
জীবনানন্দ'র প্রতীক্ষায় -রঞ্জনা মন্ডল মুখার্জি | জীবনানন্দ সংখ্যা

জীবনানন্দ’র প্রতীক্ষায় -রঞ্জনা মন্ডল মুখার্জি | জীবনানন্দ সংখ্যা

 রঞ্জনা মন্ডল মুখার্জি  তোমায় আজও খুঁজে চলেছি, রূপসী বাংলার প্রান্তরে,দেউলে, নদীতটে, রূপসার জলে,গাঙুরের তীরে, জলঙ্গীর ঢেউয়ে, ধলেশ্বরীর তীরে আজও বসে আনমনে…. তোমার প্রতীক্ষায়..! আমি আজও চেয়ে ...