কবিতা – প্রিয়জন

নির্মল ঘোষ
এইতো আর কটা দিন, বর্ষা পেরিয়ে আসবে শরৎ,
চারিধারে ছেয়ে যাবে সাদা রঙের কাশফুলে।
আনন্দে আপ্লুত হবে গোটা দেশ।
আকাশে মেঘেরা খেলা করবে বাঁধনহারা।
শিউলি টগর হাসনাহেনার সুগন্ধে মেতে উঠবে প্রকৃতি।
পাখিরা সুর তুলবে প্রেম তরঙ্গে।
সমগ্র বাংলা যখন স্বর্গ ছোঁবে ঠিক তখন
শুধু আমার হৃদয় বাদল দিনের মতো  ঝরবে অঝোরে।
তোমাকে হারানোর আট বছর হবে।
জানি তুমি সৃষ্টিকর্তার কাছে ভালো আছো অনেক।
রাত্রি যখন গভীর হয় নিশ্চুপ চারিদিক,
আমি জানালার গ্রিলে তাকিয়ে থাকি দূর আকাশে।
তারার দেশে,শত শত তারার ভিড়ে –
যদি তোমাকে খুঁজে পাই,একটি বার শুধু একটি বার।
কত দিন হয়ে গেছে আমাকে নিয়ে কির্তনে যাওনি।
তুমি কি দেখতে পাও দাদু খোল কর্তালের ধ্বনি,
আজও আমাকে কতটা পোড়ায়,
কতটা ব্যাকুল করে, কতটা কাছে টানে।
আমি আজও ছুটে যায় মন্দিরে বারে বারে।
ভক্তদের সমাগমে আমি তোমাকে অনুভব করি।
গভীর ভক্তিতে আমার দু নয়ন ভেসে যায় অশ্রুধারাতে।
কত দিন তোমার কাঁধে চড়ে আমি কির্তনে গেছি।
শরৎ এলে তুমি উঠানে পাটি বিছিয়ে,তোমার বুকে
আমাকে জড়িয়ে কত গান,কত গল্প শুনিয়েছো।
একবার খোকসার কালী পূজার মেলায়
তোমার পকেট মার হলো তবুও তুমি রমেশ দাদুর- দোকান থেকে বাকিতে ছানার জিলাপি খাওয়ালে।
আমি আজও ছুটে যায় মন্দিরের মেলায়,
সবার দাদু তাদের নাতিদের বুকে জড়িয়ে ধরে
কতো আদর করে,আমি দুর থেকে তাকিয়ে দেখি।
বুকটা ফেটে যায় আমার, তুমি ছিলে আমার আদর্শ,
আমার বড় হবার প্রেরণা।
এখনো আমি আমার সকল সাফল্যে
অনুভব করি তোমার স্পর্শ তোমার আশীর্বাদ।
আমার হৃদয়ের সবটুকু ভক্তি দিয়ে
তোমাকে জানাই শ্রদ্ধাঞ্জলি।
এই লেখাটি শেয়ার করুন

সম্পাদকের কথা

লেখালিখি ও সৃজনশীল সাহিত্য রচনার চেষ্টা খুবই সহজাত এবং আবেগের দুর্নিবার আকর্ষণ নিজের গভীরে কাজ করে। পাশাপাশি সম্পাদনা ও প্রকাশনার জন্য বিশেষ তাগিদে অনুভব করি। সেই প্রেরণায় ছাইলিপির সম্পাদনার কাজে মনোনিবেশ এবং ছাইলিপির পথচলা। ছাইলিপিতে লিখেছেন, লিখছেন অনেকেই। তাদের প্রতি আমার অশেষ কৃতজ্ঞতা। এই ওয়েবসাইটের প্রতিটি লেখা মূল্যবান। সেই মূল্যবান লেখাকে সংরক্ষণ করতে লেখকদের কাছে আমরা দায়বদ্ধ। কোন লেখার মধ্যে বানান বিভ্রাট থাকলে সেটির জন্য আন্তরিক দুঃখ প্রকাশ করছি। ছাইলিপি সম্পর্কিত যে কোন ধরনের মতামত, সমালোচনা জানাতে পারেন আমাদেরকে । ছাইলিপির সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ ।