কয়েকটি কবিতা

কবিতাঃ ০১
অভিশাপ দিচ্ছি
রফিকুল নাজিম

আমি অভিশাপ দিচ্ছি
তুমি শত চেষ্টা করেও আমাকে ভুলতে পারবে না,
আমি অভিশাপ দিচ্ছি
আমাকে ছাড়া তুমি অন্য কোনো আকাশ চিনবে না
অন্য কোনো পাখি, নদী, ফুল, পাহাড় কিংবা দীঘল পথ
বেমালুম ভুলে গিয়ে জিবে কামড় বসাবে লজ্জায়!
আমি আরো অভিশাপ দিচ্ছি
তুমি হঠাৎ আমাকে ছেড়ে চলে গেলেও
তোমাকে ফিরে আসতেই হবে; সহাস্যে।
আমি এমন অভিশাপ দিচ্ছি যে
আমাকে ছাড়া অন্য কাউকে তুমি ভালোবাসতে ভুলে যাবে
শুধু আমাকে নিয়েই তুমি ভাবনার জগতে ডুবে থাকবে।
আমাকে তুমি ভালোবাসতে বাসতে
একদিন ভালোবাসার সব কলাকৌশল রপ্ত করে
তুমি কেবল আমাকেই ভালোবাসবে।

কবিতাঃ ০২
বুকের ভেতর কথা জমাই
রফিকুল নাজিম

আমি রোজ কথা জমাই
বড় কথা, ছোট কথা
মাঝারি কথাও আমি জমাই,
বুকের গোপন কুঠরিতে পাইকারি ও খুচরো কথা জমাই!

জমানো কথাগুলো বুকের ভেতর ঝনঝন শব্দ করে,
কথাগুলো মুচকি হাসে, ভেটকি হাসে,
হঠাৎ ভয়ংকর রকম অট্টহাসিতে ফেটে পড়ে
সেই হাসি প্রতিধ্বনিত হয় বুকের ভেতর; অলিন্দে অলিন্দে!
আমি রোজ কথা জমাই
তোমাকে না বলা কথাদের লম্ফঝম্পে কাঁপে আমার হৃদপিণ্ড
আমি রোজ কথা জমাই;
একদিন তোমাকে সব কথা বলে দিবো বলে,
বুকের পরতে পরতে কথাগুলো সাজিয়ে গুছিয়ে রাখি,
সত্যি সত্যি একদিন বুকের গোপন কথাগুলো
গড়গড় করে তোমাকে বলে দিবো।

এক বুক কথা নিয়ে যখনই তোমার সামনে এসে দাঁড়াই
নিঃশব্দে আমার কথাগুলো তখন হাওয়া হয়ে যায়;
মিলিয়ে যায় শূন্যে।
তখন বুকটা আরো ভারী হয়ে ওঠে; ব্যথায় টনটন করে আমার হৃদপিণ্ড
তারপর আবার আমি নিয়ম করে কথা জমাই
প্রতিদিন কথা জমাই
একদিন তোমাকে বলবো বলে….

কবিতাঃ ০৩
রাশিফল
রফিকুল নাজিম

আজকের রাশিফল বলছে দিনটা আমার দারুণ যাবে
কষ্টিপাথর দিয়ে যাচাই করে বুঝে নিলাম
আজই আমার সেই শুভ লগ্ন,
বুকের আনাচে কানাচে যে অব্যক্ত কথার পায়চারি
সবটুকু সাহস বুকে নিয়ে আজ তোমাকে বলেই দেবো।
আমি তোমার সামনে এসে দাঁড়াতেই তুমি উড়াল দিলে
পরিযায়ী পাখির মত যতটুকু ওম তোমার লাগে
কড়ায়গণ্ডায় তুমি বুঝে নিয়েছো সুচতুরভাবে
তারপর উড়ে গেলে, সূদুরতমা!

রাশিফল, তুমি মিথ্যে ছিলে।

কবিতাঃ ০৪
পাখির জীবন চাই
রফিকুল নাজিম

তোমার উঠানে সোনালী ধান ছড়ানো
বুলবুলির মত যদি আমি খুঁটে খাই…
তাড়িয়ে দিবে?
যদি রোদের ওমে বসে খেতে দাও ধান
তিন সত্যি- আমি তবে পাখির জীবনই চাই।

কবিতাঃ ০৫
প্রতিকূল আবহাওয়া ও প্রেম
রফিকুল নাজিম

হৃষ্টপুষ্ট কষ্টগুলো যখন ভাঙচুর চালায় আমার গেরস্থালিতে
যখন দুঃখের উজান জল বান ডেকে যায় বুকের গহীনে,
যখন হোমড়াচোমরা বেদনারা সশস্ত্র বাহিনীর মত হেঁটে যায়
যখন ক্ষুধার তাড়না গিলে খায় আমাদের প্রেম ও কাম,
তখন মায়ার পথেও নেমে আসে পাথর সমেত সুউচ্চ পাহাড়
পাহাড়ী ঢালে অরণ্যে হেলান দেয় মন খারাপের মেঘমালা
বৃষ্টির প্রতীক্ষায় আনচান করে বেঁচে থাকার অমুক বিশ্বাস।

প্রতিকূল আবহাওয়ার পূর্বাভাসে শুনে,

পরিযায়ী পাখির মত একদিন আমাদের প্রেমও জানালা দিয়ে পালিয়ে যায় দূরে!

এই লেখাটি শেয়ার করুন