নৈশভোজ | দীর্ঘ কবিতা | সাপ্তাহিক স্রোত

নৈশভোজ | দীর্ঘ কবিতা | সাপ্তাহিক স্রোত

I প্রিয় রহমান আতাউর 

 

অঘ্রানের শীতে-

রাতের আহারশেষে আরাম কেদারায় বসে – ঘামতে থাকেন কবি।

সামান্যই খেয়েছিলেন কাকরোল ভাজি ও বাঁশমতি চালের ভাত – সাথে তালের ক্ষীর ও দইবড়া।

বোধহয় হজম হয়নি ওসব-

এম্নিতেই ক’দিন থেকে প্রচণ্ড দাঁতের ব্যথা!

তথাপি একটু তামাকু সেবন না করলে কি হয়?

 

গেলো সপ্তায় খেয়েছিলেন বালিহাঁসের ভুনা মাংস

তন্দুর রুটি দিয়ে – এখনো মুখে লেগে আছে।

আকাশের নীহারিকাপুঞ্জ কী দীপ্তিময়!

আঁধার ঘিরে জ্বলজ্বল করে জ্যোতির্ময় সপ্তর্ষিমণ্ডল।

গভীর অমাবস্যার রাতে – কখনো বা যান

শ্মশানে। দেখেন, কী হিংস্র ভাগাড়ের শকুনগুলো!

যেতে হয়- তাড়া খেতে হয় নিশাচর শেয়ালের!

একটি ঘাসফড়িংয়ের মৃত্যু দেখেও কেঁদে উঠেন তিনি! পাতিহাঁসের পাখার চেয়েও কত হাল্কা,

কত ঠুনকো এ জীবন!

তাঁর নিকষিত রচনাবলি -পাঠকপ্রিয়তা পায়-

সে কি এম্নি এম্নি?

 

কখনোবা স্টেশনের প্লাটফর্মে ভিখেরির মতো রাত

জেগে জেগে মশার কামড়ে অতিষ্ঠ হন।

একবার বমি করেছিলেন গঞ্জিকা সেবন করে ;

পঁচা গোবরের মতো গন্ধে ভেতরটা কেমোন গুলিয়ে

আসে তাঁর!

 

জীবনানন্দ দাশ শেষ জীবনে দালালি করেছেন

কাছারি অফিসে । ধুঁকে ধুঁকে মরেছেন

স্বভাব কবি গোবিন্দ দাস!

পার্সি বিশে শেলি’র হয়েছে সমুদ্র সমাধি;

সে হিসেবে অনেক ভালো আছেন তিনি

বেশ তো চলে যাচ্ছে দুমুঠো খেয়ে, পরে।

 

কবি হতে গেলে কখনো কখনো নাবিক হতে হয়

জাহাজের, খালাসী হতে হয় নৌবন্দরে। কখনোবা ভবঘুরে হয়ে- ভিক্ষে করতে হয় ফুটপাতে;

পৃথিবীর সবাই কি আর কবি!

পকেট মারের অভিজ্ঞতাটা না নেয়াই ভাল;

এতে জীবনের ঝুঁকি আছে!

কথায় আছে- ‘যতক্ষণ শ্বাস, ততক্ষণ আশ!’

পছন্দ নয়- নোংরা গণিকালয়। জীবনেও ওপথ মাড়াননি তিনি!

 

হিমশীতল রাতে নামে বাবুইয়ের ঝাঁক আখক্ষেতে,

কী নরম তুলতুলে মাংস বাবুইয়ের!

বহুকাল খাওয়া হয়নি তাঁর – বড় আফসোস!

আর ঐ হলিবিলের বেগুনরঙা পানকৌড়িগুলো!

নৈশভোজে যদি পাখির মাংসই না থাকে –

সেটাকে কী আর আহার বলা চলে?

 

আচমকা, হঠাৎ শিরদাঁড়ায় ব্যথা উঠে তাঁর-

অসহ্য বেদনায় ঢলে পড়েন চেয়ার থেকে মাটিতে-

টেবিলে পাণ্ডুলিপি ঠাসা-

বেরোবে নতুন বই, কতই না ছিলো আশা!

 

 

গোপালপুর, জামালপুর।

“বিনা অনুমতিতে এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা কপি করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ। কেউ যদি অনুমতি ছাড়া লেখা কপি করে ফেসবুক কিংবা অন্য কোন প্লাটফর্মে প্রকাশ করেন, এবং সেই লেখা নিজের বলে চালিয়ে দেন তাহলে সেই ব্যাক্তির বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বাধ্য থাকবে
ছাইলিপি ম্যাগাজিন।”

সম্পর্কিত বিভাগ

পোস্টটি শেয়ার করুন

Facebook
WhatsApp
Telegram
শূন্য মন্দির মোর - হুসাইন দিলাওয়ার

শূন্য মন্দির মোর – হুসাইন দিলাওয়ার

 হুসাইন দিলাওয়ার শরতের বৃষ্টিস্নাত সকাল ।  ঘুমের জন্য যুতসই একটা আবহাওয়া ।  অন্যদিন সকাল ছয়-সাতটা নাগাদ রোদ উঠে যায় ।  রোদের তেজও থাকে গা জ্বালানো ...
 চুম্বন

 চুম্বন

তসলিমা নাসরিন আমি হাঁ হয়ে তাকিয়ে থাকি সুশান্তর দিকে। দরজার কাছে আমিও এসেছিলাম সুশান্ত যাওয়ার পর দরজা বন্ধ করবো বলে। ঠিক বুঝে পাই না সুশান্ত ...
একটি দীর্ঘ কবিতা

একটি দীর্ঘ কবিতা

হুমায়রা বিনতে শাহরিয়ার আচ্ছা!জীবনের মানে কি? জন্মের পর হতে মৃত্যু পর্যন্ত- কিসের আশায় বড় হয়ে ওঠা? টাকার জন্যে? হয়তো! টাকায় তো কতো কি না হয়! ...
বর্ণময় ৪৯তম মহান বিজয় দিবসের গুরুত্ব ও তাৎপর্য

বর্ণময় ৪৯তম মহান বিজয় দিবসের গুরুত্ব ও তাৎপর্য

সুবীর মন্ডল   আজ ১৬ ডিসেম্বর,  ৪৯তম বিজয় দিবস।  ২০২১ সাল নানা দিক থেকে বাংলা দেশের কাছে গৌরবময় সাল। স্বাধীনতার ৫০ বছর ছোঁয়া এবং বঙ্গবন্ধুর শতবার্ষিকী। ...
নিবন্ধ- বিদ্যাসাগরের দ্বিশত জন্মবার্ষিকীতে-আমাদের কৈফিয়ত

নিবন্ধ- বিদ্যাসাগরের দ্বিশত জন্মবার্ষিকীতে-আমাদের কৈফিয়ত

ডঃ গৌতম সরকার আজকে ভাবতে বসলে রূপকথার মত মনে হয়, বেশি নয়, একশো ষাট-সত্তর বছর আগের ঘটনা৷ বাংলার ঘরে ঘরে বহু শিশু, কিশোরী, যুবতী সাদা ...
অভিমান

অভিমান

 |রেজা করিম    অভিমান ভুলে গেলে ফিরে এসো,  ঠাঁয় দাঁড়িয়ে আছি আজও –  সেখানেই,  যেখানে শুরু হয়েছিলো  আমাদের  ভালোলাগা ভালোবাসা খুনসুটি বিশ্বাস।  এখানেই  এসো, যুগল ...