বই পর্যালোচনা যে ভাবে লিখবেন

ছাইলিপি সাহিত্য

 

আমরা যারা বই পড়ি কিংবা সাহিত্য চর্চা করি তারা বই পর্যালোচনা কিংবা বুক রিভিউ’র সাথে বেশ পরিচিত। বই পর্যালোচনা অর্থাৎ কোন বইয়ের পড়ার পরে সেটি সম্পর্কে পর্যবেক্ষণ দৃষ্টিতে বইটি পড়ে ভালো লাগা কিংবা খারাপ লাগা, কিংবা বইটির দোষগুণ-ভুলত্রুটি সম্পর্কে আলোচনা কিংবা সমালোচনা করা।

বুক রিভিউ বা বই পর্যালোচনা সাহিত্যের একটি জনপ্রিয় অংশ ।

বই পর্যালোচনা লিখতে হলে  যে বিষয়গুলো অনুসরণ করতে পারেন ।

সার সংক্ষেপ-

সার সংক্ষেপ অর্থাৎ কাহিনী সংক্ষেপ বলতে বইটি কোন বিষয় কিংবা প্লটের উপর লেখা হয়েছে তার সংক্ষিপ্ত বিবরণ।
সাধারণত একটি উপন্যাসের পর্যালোচনা লিখতে গেলে উপন্যাসটি কোন প্লটের উপর নির্মিত সেটি ছোট পরিসরে লেখাই সার সংক্ষেপ।

চরিত্র এবং অন্যান্য-

বইটির মূল চরিত্র নিয়ে লিখলে পাঠকের বুঝতে সুবিধা হয়। কোন উপন্যাসের সংক্ষিপ্ত বিবরণ। কিংবা মূল চরিত্রের সংক্ষিপ্ত বিবরণ। পাঠককে আকৃষ্ট করে। কিংবা অন্যান্য বিষয়বস্তু যুক্ত করতে পারেন। যাতে বইটি পাঠককে পড়তে আগ্রহ সৃষ্টি করে।

পাঠ-প্রতিক্রিয়া-

ডালহৌসি বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়মানুসারে বই পর্যালোচনা দুটি উদ্দেশ্য রয়েছে।

বর্ণনামূলক পর্যালোচনা :একটি বই সম্পর্কে প্রয়োজনীয় তথ্য প্রদান করে বর্ণনা ও বিশ্লেষণ করে লেখকের উদ্দেশ্য, বইটি থেকে কাঙ্ক্ষিত অংশ নিয়ে এ কাজ করা হয়।

সমালোচনামূলক পর্যালোচনা :

বইটি পড়ার পরে আপনার কাছে বইটি কি মানদণ্ড দাঁড়ায়, বইটির কোন অংশে ভুল পরিলক্ষিত হয়েছে। কিংবা পরবর্তী সংস্করণে বইটির কি কি বিষয় পরিমার্জন করা উচিত সে সব বিষয় নিয়ে লিখতে পারেন।

বই সম্পর্কিত তথ্য-

বইটির লেখককে,বইটির মূল্য কত,বই টি কোন প্রকাশনী থেকে প্রকাশ হয়েছে এবং বই সংশ্লিষ্ট তথ্য নিয়ে লিখতে পারেন৷

এই লেখাটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *