বই পর্যালোচনা- ক্যাপ্টেন থমসনের গুপ্তধন

বই পর্যালোচনা- ক্যাপ্টেন থমসনের গুপ্তধন
বইয়ের নাম-ক্যাপ্টেন টমসনের গুপ্তধন।
লেখক-সৌরভ মুখোপাধ্যায়।
ধরণ-এ্যাডভেঞ্চার।
প্রকাশকাল-২০১২
বই পর্যালোচনা- আবির জয় 
.
.
.
সৌরভ মুখোপাধ্যায়ের লেখা “ক্যাপ্টেন থমসনের গুপ্তধন” এক অনবদ্য গল্প।
লেখকের জন্ম ১৯৭৩ সালে পশ্চিম ভারতের হাওড়া জেলায়।তিনি ইংরেজি সাহিত্যের ছাত্র ছিলেন এবং পেশায় শিক্ষকতা শুরু করেন।
তার লেখা বহু পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে এবং ভালো সাড়াও পাঠকের কাছ থেকে পেয়েছেন।
তো তেমনই সাড়া জাগানো একটা গল্প “ক্যাপ্টেন থমসনের গুপ্তধন” যার রহস্য রস পাঠককে নিরাশ করবে না।
গল্পটি আঠারো’শ শতাব্দীর থমসন নামের একজন নাবিককে নিয়ে।
তার জাহাজের নাম ‘গ্রীণ অলিভ।
তিনি তখন সবে তার দীর্ঘ সমুদ্র যাত্রা শেষে জাহাজ নোঙর করে মোটা অংকের অর্থ নিয়ে পেরুর লিমা শহরে বিশ্রাম নিচ্ছেন।পেরুর এই লিমা শহর তখন জাঁকজমকপূর্ণ অন্যতম বিলাসীতার শহর।
তখন আবার গোটা দক্ষিণ আমেরিকা জুড়েই তখন স্পেনের আধিপত্য।আর এর মূল কারণ সোনা।
স্প্যানীয় নৌবাহিনী এসে দক্ষিণ আমেরিকার বিভিন্ন উপজাতির কাছ থেকে লুট করতে লাগল বিপুল পরিমাণে সোনা।তখনকার উপজাতি মায়া,ইনকা’র মত উপজাতিদের নিকট এত পরিমাণে সোনা মজুদ ছিল যে গোটা পৃথিবী জুড়েও এত সোনা বোধ হয় পাওয়া যাবে না।আগ্রাসী স্প্যানিয়ার্ডরা ইচ্ছেমত যেভাবে পারল লুট করল রাশি রাশি সোনা।

বই পর্যালোচনা- ক্যাপ্টেন থমসনের গুপ্তধন
একসময় উপজাতিরা বিদ্রোহী হয়ে উঠল এইসব স্প্যানিয়ার্ড শাসকদের উপর এবং হামলা করে তাদের সোনা কেড়ে নেবার সিদ্ধান্ত নেয়।তবে পেরুর শাসকের এই হামলার থেকেও বড় দুশ্চিন্তা সোনার।তাদের কাছে এত সোনা মজুদ আছে যে যা দিয়ে পুরো পৃথিবী কিনে নেয়া যাবে।যুদ্ধ হোক সমস্যা নেই কিন্তু তার সিকিভাগও যেন ঐসব অসভ্য,বর্বর,মূর্খ উপজাতির হাতে না পৌঁছায়।
এর জন্যই পেরুর শাসনকর্তা সিদ্ধান্ত নিল তারা ঐ বিপুল পরিমাণ স্বর্ণ গীর্জা থেকে হস্তান্তর করবেন অন্য কোনো গোপন স্থানে।
এখানেই ক্যাপ্টেন থমসনের আবির্ভাব।গোপনে শাসকের চার অমর্ত্য ক্যাপ্টেনকে শাসকের সামনে এনে সব খোলসা করল এবং বলল পরদিন ভোরের মধ্যে জাহাজে গোপনে সোনা মজুদ করে চলতে হবে নির্দিষ্ট স্থানে। থমসন রাজি হলো।
থমসনের ভাবতেই অবাক লাগে ‘পৃথিবী কেনার মত সমান অর্থের সোনা  জাহাজে নিয়ে যেতে হবে গোপন স্থানে!নকশা দেখে পাড়ি দিতে হবে সূদুর সমুদ্রের পথ!
এই নিয়ে থমসনের গল্প শুরু যেখানে তার জাহাজে সে আর দুই রাজপ্রতিনিধি ব্যতীত কেউই জানে না আসলে এই জাহাজ কি নিয়ে যাচ্ছে আর কোথায় যাচ্ছে….
আশা করি গল্পটি পাঠকের কাছে ভালো লাগবে।গল্পটি পড়ার অনুরোধ রইলো।

“বিনা অনুমতিতে এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা কপি করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ। কেউ যদি অনুমতি ছাড়া লেখা কপি করে ফেসবুক কিংবা অন্য কোন প্লাটফর্মে প্রকাশ করেন, এবং সেই লেখা নিজের বলে চালিয়ে দেন তাহলে সেই ব্যাক্তির বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বাধ্য থাকবে
ছাইলিপি ম্যাগাজিন।”

সম্পর্কিত বিভাগ

পোস্টটি শেয়ার করুন

Facebook
WhatsApp
Telegram
ভালোবাসা একটি অসুখের নাম ৷

ভালোবাসা একটি অসুখের নাম ৷

মুহাম্মদ ফারহান ইসলাম নীল ৷ আপনার কোকিলা কন্ঠের মায়াতে বন্দী হয়েছে আমার অন্তর ৷ সাঁতার না জানার কারণে ডুবে গেছি আপনার প্রেমে ৷ আপনাকে আপন ...
কবিতা- বাংলা ভাষা

কবিতা- বাংলা ভাষা

সাইফুল ইসলাম মুহাম্মদ জন্ম নিয়ে দুঃখ নেই পেলাম বাংলা ভাষা বাংলা বীনে কথা বলে মিটে না যে আশা। আমার ভাইয়ের রক্ত সেদিন যায়নি তাই বৃথা তাইতো আজ নানান কাজে বলি বাংলায় ...
প্রিয়তমা সিনেমায় দূঃখের গান গাইবেন আসিফ আকবর?

প্রিয়তমা সিনেমায় দূঃখের গান গাইবেন আসিফ আকবর?

মুক্তি পেয়েছে শাকিব খানের নতুন সিনেমা। আর সেই সিনেমাকে ঘিরে শাকিব খানের ফ্যানদের উচ্ছ্বাস আর আকাঙ্খা ছড়িয়ে পড়েছে সোস্যাল মিডিয়া। ইতিমধ্যেই মুক্তি পেয়েছে সিনেমাটির ফাস্ট ...
মুখোমুখি - নাইমুল ইসলাম ইভু

মুখোমুখি – নাইমুল ইসলাম ইভু

নাইমুল ইসলাম ইভু পাশাপাশি বসে থাকা… অথচ ; কোন কথা নেই আমাদের নিরবতা বিরাজ করছে দু’জনায়, আগের মতো আঙুল ছোঁয়া হয় না- কাঁধে মাথা রেখে ...
মদে লবন মিশালে হালাল হয়ে যায়?

মদে লবন মিশালে হালাল হয়ে যায়?

ছাইলিপি আর্টিকেল ডেস্ক বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সাংস্কৃতি একেকরকম। বিশেষ করে দেশী সাংস্কৃতি ও ঐতিহ্য দেশ ভেদে পরিবর্তন হয়ে থাকে। মদ। শব্দটি আমাদের বাংলাদেশীদের জন্য এক ...
বই পর্যালোচনা- আগুনের পরশমণি- হুমায়ূন আহমেদ

বই পর্যালোচনা- আগুনের পরশমণি- হুমায়ূন আহমেদ

বইঃ আগুনের পরশমণি লেখকঃ হুমায়ূন আহমেদ বইয়ের ধরনঃ উপন্যাস প্রকাশনীঃ হাতেখড়ি প্রকাশকঃ মো: আবু মুসা সরকার প্রচ্ছদ ও অলংকরণঃ সমর মজুমদার পৃষ্ঠাঃ ৮৪ মুদ্রিত মূল্যঃ ৭০ টাকা ...