রাইটার্স ব্লক বা লেখকের বন্ধ্যাত্ব কাটাবেন যেভাবে

রাইটার্স ব্লক বা লেখকের বন্ধ্যাত্ব কাটাবেন যেভাবে

ছাইলিপি ডেস্ক

রাইটারস ব্লক একটি সাধারণ যন্ত্রণা যা অনেক লেখক তাদের কর্মজীবনের কোনো না কোনো সময়ে অনুভব করেন। এটি এমন একটি শর্ত যেখানে একজন লেখক নিজেকে কোন নতুন কাজ তৈরি করতে অক্ষম মনে করেন, বা নতুন ধারণা বা ধারণা নিয়ে আসতে তাদের অসুবিধা হয়। লেখকের ব্লক একটি হতাশাজনক এবং দুর্বল অভিজ্ঞতা হতে পারে, লেখকদের মনে হয় যেন তারা একটি সৃজনশীল দেয়ালে আঘাত করেছে। এই নিবন্ধে, আমরা লেখকের ব্লকের কারণগুলি এবং এটিকে অতিক্রম করার জন্য কিছু কৌশলগুলি অন্বেষণ করব।


রাইটার্স ব্লকের কারণ: লেখকের ব্লকের বিভিন্ন সম্ভাব্য কারণ রয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে:

ব্যর্থতার ভয়: অনেক লেখক ব্যর্থতার ভয় বা যথেষ্ট ভাল না হওয়ার ভয় নিয়ে লড়াই করেন, যা তাদের লেখার ক্ষমতার প্রতি আত্ম-সন্দেহ এবং আত্মবিশ্বাসের অভাবের দিকে নিয়ে যেতে পারে।

পরিপূর্ণতাবাদ: কিছু লেখকের পারফেকশনিস্ট হওয়ার প্রবণতা থাকে, যা তাদের পক্ষে প্রথম খসড়া অতিক্রম করা বা লেখার একটি অংশে অগ্রগতি করা কঠিন করে তুলতে পারে।

অনুপ্রেরণার অভাব: কখনও কখনও, লেখকদের কেবল ধারনা ফুরিয়ে যায়, বা তারা লেখা চালিয়ে যাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় অনুপ্রেরণা খুঁজে পায় না।


বার্নআউট: লেখা একটি মানসিক এবং মানসিকভাবে চাহিদাপূর্ণ কাজ, এবং মানসম্পন্ন কাজ তৈরি করার জন্য প্রয়োজনীয় নিরন্তর প্রচেষ্টা এবং একাগ্রতা থেকে লেখকদের জ্বলে যাওয়া সহজ।

লেখকের ব্লক কাটিয়ে ওঠার কৌশল: লেখকের ব্লক কাটিয়ে উঠতে লেখকরা ব্যবহার করতে পারেন এমন বেশ কয়েকটি কৌশল রয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে:

একটি বিরতি নিন: কখনও কখনও, লেখকের ব্লক কাটিয়ে উঠার সর্বোত্তম উপায় হল প্রকল্প থেকে দূরে সরে যাওয়া এবং বিরতি নেওয়া। এটি লেখকদের তাদের মন পরিষ্কার করতে এবং নতুন চোখ নিয়ে কাজে ফিরে আসতে সহায়তা করতে পারে।

একটি লেখার সময়সূচী সেট করুন: লেখার জন্য একটি রুটিন স্থাপন করা লেখকদের ট্র্যাকে থাকতে এবং তাদের প্রকল্পগুলিতে অগ্রগতি করতে সাহায্য করতে পারে, এমনকি যখন তারা অনুপ্রাণিত বোধ করেন না।

অবাধে লিখুন: লেখকের ব্লক কাটিয়ে উঠার একটি উপায় হল কাঠামো, ব্যাকরণ বা শৈলী নিয়ে চিন্তা না করে স্বাধীনভাবে লেখা। এটি লেখকদের তাদের ধারণাগুলি কাগজে নামিয়ে সৃজনশীল প্রক্রিয়া শুরু করতে সহায়তা করতে পারে।


আপনার পরিবেশ পরিবর্তন করুন: কখনও কখনও, দৃশ্যাবলীর পরিবর্তন লেখকদের একটি সৃজনশীল রুট থেকে বেরিয়ে আসতে সাহায্য করতে পারে। এর অর্থ হতে পারে ভিন্ন অবস্থানে লেখা বা আপনার কর্মক্ষেত্রকে পুনরায় সাজানো।

সমর্থন সন্ধান করুন: লেখকের ব্লকের সাথে তাদের অভিজ্ঞতা সম্পর্কে অন্যান্য লেখক বা সৃজনশীল পেশাদারদের সাথে কথা বলা সহায়ক হতে পারে। এটি লেখকদের কম বিচ্ছিন্ন বোধ করতে এবং লেখার প্রক্রিয়াতে নতুন দৃষ্টিভঙ্গি প্রদান করতে সহায়তা করতে পারে।


ইতিহাস জুড়েই লেখকের বন্ধ্যাত্ব একটি নথিভুক্ত সমস্যা হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছে।[২] এই দুর্দশার সাথে লড়াই করেছেন এমন পেশাদার ব্যক্তির মধ্যে রয়েছেন এফ. স্কট ফিট্‌জেরাল্ড[৩], জোসেফ মিচেল,[৪] কমিক স্ট্রিপ কার্টুনিস্ট চার্লস এম শ্যুলজ,[৫] সুরকার সের্গেই রাচমানিনোফ,[৬] এবং গীতিকার অ্যাডেল।[৭] প্রথম দিকের রোমান্টিক লেখকরা বিষয়টি সম্পর্কে খুব বেশি বুঝতে পারেননি; তাঁরা ধরে নিয়েছিলেন যে লেখকের বন্ধ্যাত্ব এমন এক শক্তির কারণে ঘটে যে শক্তিটি চায় না যে তারা আর লিখুক। ফরাসি প্রতীকীবাদী যারা তখন বিখ্যাত কবি হিসেবে গণ্য হয়েছিলেন এবং ভাব জ্ঞাপনের ভাষা খুঁজে পাচ্ছিলেন না বলে কর্মজীবনের শুরুর দিকেই লেখালেখি ছেড়ে দিয়েছিলেন তাদের সময়ে এই ধারণা কিছুটা বেশি স্বীকৃত হয়েছিল। কিছু একটা লেখককে অবরুদ্ধ করে ফেলবে আর তাদের ভেতর আবেগীয় অস্থিরতার তৈরি করবে বলে গ্রেট আমেরিকান নভেলের যুগে অনেকটা স্বীকার করেই নেওয়া হয়েছিল।[৮] ১৯৭০ এবং ১৯৮০ এর দশকের শেষের দিকে এই বিষয়ে গবেষণা করা হয়েছিল। এই সময়ে গবেষকরা প্রক্রিয়া এবং প্রক্রিয়া পরবর্তী আন্দোলন দ্বারা প্রভাবিত হয়েছিলেন আর এই কারণে লেখকের কর্ম সাধন প্রণালীর প্রতি তারা বিশেষভাবে মনোনিবেশ করেছিলেন। ১৯৪৭ সালে অস্ট্রিয়ার মনোবিশ্লেষক অ্যাডমন্ড বার্গলার এই অবস্থাকে প্রথম বর্ণনা করেন তার বর্ণনাতে মৌখিক মর্ষকাম বা আত্মনিগ্রহ, বোতলে সন্তান লালনকারী মা এবং অস্থির ও নিভৃত প্রেম জীবনকে এর কারণ হিসেবে উল্লেখ করা হয়।[৮] মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে মনোরোগবিদ্যার ক্রমবর্ধমান খ্যাতি শব্দটিকে আরও বেশি স্বীকৃতি এনে দেয়। তবে, বার্গলারের বর্ণনা দেওয়ার কয়েক বছর আগে অনেক মহান লেখকই হয়তো লেখকের বন্ধ্যাত্বে ভুগছিলেন। যেমনটা হয়েছিল হারমান মেলভিলের বেলায়; তিনি মোবি ডিক লেখার কয়েক বছর পরে উপন্যাস লেখা ছেড়ে দিয়েছিলেন।

“বিনা অনুমতিতে এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা কপি করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ। কেউ যদি অনুমতি ছাড়া লেখা কপি করে ফেসবুক কিংবা অন্য কোন প্লাটফর্মে প্রকাশ করেন, এবং সেই লেখা নিজের বলে চালিয়ে দেন তাহলে সেই ব্যাক্তির বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বাধ্য থাকবে
ছাইলিপি ম্যাগাজিন।”

সম্পর্কিত বিভাগ

পোস্টটি শেয়ার করুন

Facebook
WhatsApp
Telegram
মেডিক্যাল রিপ্রেজেন্টেটিভ -দীর্ঘ পথের স্মৃতি কথা  [পর্ব- ২ ]

মেডিক্যাল রিপ্রেজেন্টেটিভ -দীর্ঘ পথের স্মৃতি কথা [পর্ব- ২ ]

মিরাজুল হক  দু সপ্তাহের  একটা ক্লাশ রুম ট্রেনিং দিয়ে আমার পেশাদারী জীবনের চলা শুরু । মিস্টার রজত মৈত্র তখন  কন্-টেস্ট ( KonTest )-এর ট্রেনিং ম্যানেজার ...
গল্প : অচেনা অতিথি

গল্প : অচেনা অতিথি

জোবায়ের রাজু   মাগরিবের পর পরই বাবা বৃষ্টির জলে কাকভেজা হয়ে বাসায় ফিরলেন। বিকেলে বের হবার আগে মা কত করে বললেন তিন মাস আগে মারা ...
মুখোমুখি - নাইমুল ইসলাম ইভু

মুখোমুখি – নাইমুল ইসলাম ইভু

নাইমুল ইসলাম ইভু পাশাপাশি বসে থাকা… অথচ ; কোন কথা নেই আমাদের নিরবতা বিরাজ করছে দু’জনায়, আগের মতো আঙুল ছোঁয়া হয় না- কাঁধে মাথা রেখে ...
কবে মুক্তি পাবে শাকিব-সোন্যালের 'দরদ?'

কবে মুক্তি পাবে শাকিব-সোন্যালের ‘দরদ?’

সিনেমানামা ডেস্ক নতুন করেই যেন এক আলোর ঝলকানী দেখালেন বাংলাদেশের হাইয়েস্ট স্ট্যারডম কিং খান শাকিব খান। সম্প্রতি মুক্তি পেয়েছে শাকিব খানের আসন্ন মুক্তি প্রাপ্ত সিনেমা ...
বাংলায় কথা বলি

বাংলায় কথা বলি

দীপঙ্কর শীল একুশে ফেব্রুয়ারি প্রতিবার এসে আমি কাঁদি, ফুল হাতে রক্ত জমাট শহীদ মিনারে একবুক ব্যাথায়,সালাম তোমায় স্মরণ করি। একুশে ফেব্রুয়ারি নয়ন জলে তোমাদের মনে ...
অণুগল্প- সেই কাশফুল I জুয়েল রানা সাকিব

অণুগল্প- সেই কাশফুল I জুয়েল রানা সাকিব

I জুয়েল রানা সাকিব বিকালবেলা সবুজ ছোট ছোট ঘাসের উপর শুয়ে নীল আকাশ দেখার মাঝে কিংবা সাদা মেঘেদের বিভিন্ন জিনিসের আকৃতি দিয়ে কল্পনা করার মাঝে ...