মুজিব কোটি হৃদয়ে গাঁথা

গোলাম রব্বানী

আকাশ ভেঙে পড়লো
বজ্রপাতের আঘাতে আকাশের বুক
বিজলির চমকের মতন খণ্ডবিখণ্ড হয়ে গেলো
কোনো ভাবেই আকাশের পতন ঠেকানো গেলো না
দালাল-বাটপার-বিশ্বাসঘাতক-প্রতারকের হাতে
ভোর রাতে অমানিশার কোটি কোটি অন্ধকারে
সপরিবারে গভীর বেদনার পৃথিবী এনে দিলো!
যাদের কারণে আকাশ ভেঙেছে, বিষাদে ভরে গেছে
প্রিয় স্বদেশ, বিদেশ, বিশ্ব দেশ তথা গোটা বিশ্ব জাতি
তারা এখনো কী সুন্দরভাবে ভেতর থেকে
গোলাপের মত প্রস্ফূটিত হচ্ছে
অথচ
সুগন্ধির বদলে যে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে
বাতাস ভারী করছে ওদিকে কারো খেয়াল নাই!
আমার সোনার বাংলায় জ্বলছে আগুন,
পুড়ছে পতাকা –
পুরনো শকুনের সাথে যোগ হয়েছে নতুন শকুন
যতসব শকুনের দল আজ বিজয়োল্লাসে মেতেছে
অথচ ওরা কী সুন্দর বিচরণ করছে!.
আমার ভাবতেই অবাক লাগে!
ছিঃ ছিঃ এ কোন নির্লজ্জ জাতি!
যত সব বদমায়েশের দল নিয়ে এখনো খেলা করছে!
সাত কোটি মানুষের প্রাণভোমরা মুজিব তর্জনী
খেলায় বলেছিল দাবায়ে রাখতে পারবা না!
হ্যাঁ বন্ধুরা, আজ আমরা ঠিকই উন্নত শির!
কিন্তু আমরা আজ আর বেঁচে নেই!
ঠিক ই মুজিব চন্দ্র সূর্যের মতন জ্বলছে!
মুজিব থাকবে অনন্তকাল ধরে পথের নিয়মে!
অ নেতারা মরছে না
মরছে না সুশীল সমাজ
মরছে না জাতির বিবেক
মরছে না বিশ্বাসঘাতকেরা!
মরছে না সাম্রাজ্যেবাদীরা
মরছে না দালালেরা- অভিশপ্ত সেবাদাসেরা!
জাতির জনক মুজিবের রক্তের ধারা প্রবাহিত হয়েছে
টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়া কিংবা শিবগঞ্জ থেকে থানচি
এক বিরাট মানচিত্রে- আমার বাংলাদেশ!.
বঙ্গবন্ধু মানে বাংলা বিশ্ববন্ধু মানে বাংলাদেশ
বাংলা আর বাংলাদেশের এক নাম শেখ মুজিব
জ্বলেপুড়ে মরছে বাংলার আপামর বাঙালির সূর্য সন্তানেরা
জ্বলেপুড়ে মরছে কোটি কোটি সতেজ বৃক্ষের পাতা
জ্বলেপুড়ে মরছে নক্ষত্রের হাজার কোটি তারকারাজি
জ্বলেপুড়ে শুকিয়ে ছাই ভস্ম হচ্ছে সাগরের জল
যন্ত্রণায় আজ মরুভূমির ধূ ধূ বালুর চোখে কান্না
জ্বলেপুড়ে মরছে মুষলধারের বৃষ্টির অবিরাম বরষা
আমার বাংলায় সহজ সরল জনতা ধুঁকে ধুঁকে মরছে
প্রিয়নেতা বঙ্গবন্ধু তথা বিশ্ববন্ধুর ভয়াল রাত্রির নিস্তব্ধতায়
এই দুনিয়ার পারের সবকিছু থমকে গেছে
পৃথিবী বুকের ব্যস্ততম সব সড়ক নিশ্চুপ হয়ে গেছে
স্কুলগামী সব সোনামণিরাও চোখের জলে ভেসে গেছে
সেই চিত্রময় সপরিবারের বাংলাদেশ রক্তের বন্যায়!
আমার সোনার বাংলা বৈরুতের মত জ্বলছে এখন
তবুও নির্ভয়ে এগিয়ে যাও বাঙালির সাহসী যোদ্ধারা
কাপুরুষের মতন পিছু হটতে যেয়ো না
বিশ্বাসঘাতকতার মতন প্রিয় হয়ো না
হে কবি! তোমার লেখা চালিয়ে যাও
হে শিল্পী সাহিত্যিকেরা তোমরা নব নব সৃজন করে যাও
পথ এখনও অনেক আমরা সত্যের পথে -সত্য পথিক!
আসুক যত বিপদ আসুক যত ঘূর্ণিঝড়-ভয় করি না!
হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ সন্তানের রক্ত শুধুশুধু বিফলে যেতে পারে না- আমরা দ্রোহী নই আমরা দেশহিতৈষী তথা বিশ্বপ্রেমিক! কোটি কোটি অন্ধকার ছিন্ন করে আমরা আলোর মশালটা জ্বালাবো- এখন ঘোর অমানিশা!
তুমি ঘুমিয়ে গেছো আপাদমস্তক বদ্বীপ অঞ্চলের বুকে
তখনও সূর্য ওঠেনি-একঝলকে পৃথিবী অন্ধকার হলো!!
তুমি বাংলার মাটি তুমি বাংলার জল বৃক্ষ আকাশ বাতাস
তুমিই বাংলাদেশের ভাই বন্ধু পিতা -তুমি চন্দ্র সূর্য আলো!
মুজিবের কীর্তি জনতায় বিশ্বমঞ্চের কোটি হৃদয়ের গাঁথা।

এই লেখাটি শেয়ার করুন

সম্পাদকের কথা

লেখালিখি ও সৃজনশীল সাহিত্য রচনার চেষ্টা খুবই সহজাত এবং আবেগের দুর্নিবার আকর্ষণ নিজের গভীরে কাজ করে। পাশাপাশি সম্পাদনা ও প্রকাশনার জন্য বিশেষ তাগিদে অনুভব করি। সেই প্রেরণায় ছাইলিপির সম্পাদনার কাজে মনোনিবেশ এবং ছাইলিপির পথচলা। ছাইলিপিতে লিখেছেন, লিখছেন অনেকেই। তাদের প্রতি আমার অশেষ কৃতজ্ঞতা। এই ওয়েবসাইটের প্রতিটি লেখা মূল্যবান। সেই মূল্যবান লেখাকে সংরক্ষণ করতে লেখকদের কাছে আমরা দায়বদ্ধ। কোন লেখার মধ্যে বানান বিভ্রাট থাকলে সেটির জন্য আন্তরিক দুঃখ প্রকাশ করছি। ছাইলিপি সম্পর্কিত যে কোন ধরনের মতামত, সমালোচনা জানাতে পারেন আমাদেরকে । ছাইলিপির সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *