জোছনা বিলাস

জোছনা বিলাস

 |রেবেকা সুলতানা রিতু. 

 

সে বার গন্তব্যস্থল ছিলো কুসুমপুর।শীতের শেষে, ঋতুরাজ বসন্তের আগমন।কলেজের সাময়িক ছুটিতে হোস্টেল থেকে  বাবা-মায়ের অনুমতি নিয়ে চললাম কুসুমপুর।অপার (অপরাজিতা)দাদার আমলে জমিদারি ভাবটা ছিলো বলে,এখন কেমন আর জমিদার বাড়ি দেখার ইচ্ছেতে সাত ঘন্টার যাত্রা শেষে পৌছালাম।আমাদের যাওয়ার খবর শুনেই অপার বাবা ঘাটের রাস্তায় গাড়ি পাঠিয়েছিলেন।প্রত্যক্ষ করলাম বেশ  রাজকীয় ব্যাপার সেখানে।বড় বাড়ি,বাগানের পরিচর্যায় নিয়োজিত তিনটে মালি,শান বাধানো পুকুর ঘাট,এছাড়াও বসার ঘরে পুরোনো দিনের হাত পাখা আর রেশমী কাপড়ের পর্দা।যদিও অপার বাবা অনেক ঘসা-মাজা করেছেন এ বাড়ির, তবুও বাবার স্মৃতি রক্ষার্থে বিশেষ কিছু চিহ্ন রেখেছেন।আমাদের যে ঘরে থাকতে দেওয়া হলো, সেটা ছিলো অতিথিসালা।বেশ বড় ঘর।একটা গ্রামোফোন ও আছে।নিলু(নিলয়) বল্ল অপার দাদা বেশ শৌখিন ছিলেন। 

 

সন্ধ্যাবেলা।অনেকটা পথ পাড়ি দিয়ে এসেছি  বলে অপার মা আমাদের রাতের খাবার খেয়ে বিশ্রাম নিতে বললেন।খাওয়া শেষে বেলকনিতে দাঁড়িয়েছি, দেখলাম রুপোলী থালার মতো পূর্ন চাঁদ উঁকি মারছে পূর্বাকাশে। আধার কেটে শুভ্র আলোর পরশ বুলিয়ে জ্যোৎস্নায় আলোকিত হলো চারিদিক। এক মোহময় রুপ মূহুর্তে আমার মনে দোলা দিলো।

অপা বল্ল পুকুরপাড়ে আরও সুন্দর পরিবেশ।পুকুরের বাধানো সিড়িতে পানির খুব কাছে বসলাম। পা ভিজিয়ে জ্যোৎস্না বিলাস। নীল ঐ আকাশের বুক চিরে যেনো জ্যোৎস্না চুয়ে পড়ছে।চারিদিকের শান্ত বাতাস মনকে পুলকিত করছে বারেবার।নিলু গান ধরেছে ,

 ও চাঁদ, সামলে রেখো  জোছনাকে 

 নিলুর কন্ঠ চমৎকার। কলেজেও শুনেছি বেশ কয়েকবার গান। 

প্রকৃতির এই নীরব হাতছানি যেনো কোন এক রুপকথার রাজ্যে টানছে আমাদের। আমি আর অপার পুকুরের পানিতে পা দুলাচ্ছি আর নিলুর সাথে গলা মিলিয়ে  গান গাইছি। রুপোলী চাঁদ যেনো আজ পুকুরের পানিতে ভাসমান।  যে দু-একটা মাছ লাফাচ্ছে, স্বচ্ছ আলোয় যেনো তা চকচক করছে। 

 

চারিদিকে সুনশান-নিস্তব্ধতা। দূর থেকে গ্রামোফোনের গান ভেসে আসছে।অপা বল্ল তার বাবা রাতে খাবার পর বেলকনিতে চেয়ার পেতে ঘন্টা দু-এক গান শোনে।দক্ষিণের ঘর হওয়াতে ক্ষীণ আওয়াজ আসছে।

নিলু একের পর এক গান বলে যাচ্ছে। আমরা মন্ত্রমুগ্ধ হয়ে শুনছি আর মাঝে মাঝে তাল দিতে গলা মিলাই।

 

আজ জোছনা রাতে সবাই গেছে বনে,

  বসন্তের এই মাতাল সমীরণে…

 

রবী ঠাকুরের গান।পুকুরের পানির শব্দ, নিস্তব্ধ বাতাসের সাথে তিনজনে গলা মিলিয়ে তাল দিচ্ছি। জ্যোৎস্নার উপচে পড়া স্নিগ্ধতা রাত বাড়ার সাথে সাথে ছড়িয়ে পড়ছে চারিদিকে।মাঝে-মাঝে শুভ্র মেঘের দল লুকোচুরি খেলছে চাঁদের সাথে।হৃদয়ের কোণে লালিত বাসনার পরিতৃপ্তিতে আনন্দিত মন। অপার কন্ঠে চলছে,

     ও চাঁদ,সামলে রেখো   

    জোছনাকে,কারো নজর লাগতে পারে 

 

অজানা গন্তব্যের মেঘেদের মতো আজ কোথাও হারিয়ে যেতে মন চাইছে।আজ হারিয়ে যেতে নেই মানা।

কিন্তু করার নেই কিছু।রাত গভীর হওয়ায় অপার মা ডেকে পাঠান।যে সুধা মনকে ব্যাকুল করে তুলেছিলো, তা আস্বাদনে যে কয়েকদিন ছিলাম রোজ যেতাম পুকুরঘাটে।জ্যোৎস্নালোকিত চাঁদের সংস্পর্শে আকাঙ্ক্ষার পরিতৃপ্তি পেতাম।

“বিনা অনুমতিতে এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা কপি করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ। কেউ যদি অনুমতি ছাড়া লেখা কপি করে ফেসবুক কিংবা অন্য কোন প্লাটফর্মে প্রকাশ করেন, এবং সেই লেখা নিজের বলে চালিয়ে দেন তাহলে সেই ব্যাক্তির বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বাধ্য থাকবে
ছাইলিপি ম্যাগাজিন।”

সম্পর্কিত বিভাগ

পোস্টটি শেয়ার করুন

Facebook
WhatsApp
Telegram
জীবনানন্দের সিনেপসিস

জীবনানন্দের সিনেপসিস

আশিক মাহমুদ রিয়াদ  বরিশালে বৃষ্টি মানেই সৃষ্টির অন্য রূপ এসে ধরা দেয় প্রকৃতিতে। সারাদিনের ব্যস্ত সময়, বৃষ্টিস্নাত ভরদুপুরে এসে ঝিমিয়ে পড়ে নিছক কোন অযুহাতে। সেরকমই ...
ফুটপাত |মোঃ রাসেল শেখ

ফুটপাত |মোঃ রাসেল শেখ

|মোঃ রাসেল শেখ   চৌরাস্তার মোড়ে ফুটপাতের পাগলীর পেটে! নাকি কোনো ধনীর দুলালীর সখের উদর চেটে। আমার জন্ম হয়েছে, রেল রাস্তার ঐ সরু গেটে- দিন-রাত ...
প্রজাপতি খেলা-আনোয়ার রশীদ সাগর

প্রজাপতি খেলা-আনোয়ার রশীদ সাগর

 আনোয়ার রশীদ সাগর   শিউলি ফুটেছিল, ঝরে যাচ্ছে; মেঘেরাও হারিয়ে যাচ্ছে নীল আকাশের আড়ালে ছায়াপথে আজ আঁধারের বিশালতা, কোন একদিন রাখালিয়া সুরে ঝরায়েছিল জোছনা স্বপ্নস্রোতের ...
অনলাইনে টাকা ইনকাম ২০২৪

অনলাইনে টাকা ইনকাম ২০২৪

ডিজিটাল যুগে, ইন্টারনেট আপনার জন্য সোনার খনি হয়ে উঠেছে ।হ্যাঁ স্রেফ ইন্টারনেটই সোনার খনি হয়ে উঠেছে। যারা নিজের জন্য ঘরে বসে আয় করতে চায়। দূরবর্তী ...
সিদ্ধার্থ সিংহের দুটি কবিতা

সিদ্ধার্থ সিংহের দুটি কবিতা

সিদ্ধার্থ সিংহ কুয়াশা সানন্দায় সে বার প্রচ্ছদ কাহিনি ঠিক হয়েছিল—চুম্বন। দেবশ্রী রায়কে জিজ্ঞাসা করেছিলাম— আপনি প্রথম চুমু খেয়েছিলেন কাকে? তিনি বলেছিলেন, আমার প্রথম চুমু খাওয়ার ...
'বলি' ওয়েবসিরিজ রিভিউ

‘বলি’ ওয়েবসিরিজ রিভিউ

আশিক মাহমুদ রিয়াদ  ওয়েবসিরিজ – ‘বলি’ পরিচালক – শঙ্খ দাসগুপ্ত সাগরের নোনাজলে ভেসে গেছে কত দেহ.. নোনাজলে চর জাগে..ভেসে আসে প্রাণ.. শুকায় চোখের জল পাপের ...