ভালোবাসার গল্প – পৃষ্ঠা ১৭

ভালোবাসার গল্প - পৃষ্ঠা ১৭

তাহারাত সিকদার

তখনো মেয়েটি হাত ছাড়েনি। খুব শক্ত করে টেনে ধরে রেখেছে। বাম হাত একটা পাক খেয়েছে কিন্তু কোনোভাবেই যেন ওদের আলাদা করা যাচ্ছেনা। পুরো শরীর টা মাত্র কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে নিস্তেজ হয়ে গেলো। শরীরটা একেবারে থেঁতলে দিয়ে চলে গেছে। আমার হাত থেকে চায়ের কাপটা পরে ভেঙে গেল। চা খানি গড়িয়ে রক্তে গিয়ে মিশেছে। তবুও রক্ত তার নিজের রঙে অটুট।

পৌনে একটা বেজে, রোজকার রুটিনে তাকিয়ে এখন আমার চা খাওয়ার সময়। কিছু মানুষ চা খাওয়া একদমি পছন্দ করেনা আবার কারোর কাছে এটা একটা নেশা। তবে আমার কাছে ব্যাচেলার জীবনের রুটিন মাত্র। জানিনা সবাই পছন্দ করে কিনা, তবে আমার এই মধ্য দুপরে চা খাওয়াটা বেশ ভালো লাগে। সুর্যের প্রচন্ড তাপে ঘামে ভেজা শরীরে রাস্তার ধুলো জমে একাকার। ঠিক সেই মুহূর্তে এক কাপ কড়া রং চা আদা লেবুর সাথে কাপ থেকে উঠতে থাকা ধোয়া, আহ ভাবতেই একটা ভালোলাগা এসে যায়।

পনেরো মিনিট ধরে বসে আছি কিন্তু এখনো দেখা পেলাম না। আজ হঠাৎ কি হলো? বড়োই অদ্ভুত ব্যাপার। এমন তো কখনো হয়নি। একটু দুশ্চিন্তায় পরে গেলাম।
ওরা আবীর, মায়া। মেডিকেলে পড়াশোনা করছে। রোজ একসাথে যাওয়াআসা। চোখে পরেছিলো দুজনের হাসি। যা থেকে ওদের পরিচয় আমার ডায়রিতে। কি কথা বলে, যে দুজনে দুজনের দিকে তাকিয়ে এত সুন্দর ভাবে হাসে? যদি ব্যাপার টা ধীরগতিতে উপস্থাপন করা যেতো তবে যেকেউ নেশাগ্রস্ত হয়ে যেতো। অবশ্য এই নেশাটা হলো ওদেরকে জানার কৌতুহল মাত্র। যা আমাকে ওদের সম্পর্কে জানতে খুবি আগ্রহী করেছিলো।
পৌনে একটা থেকে একটা। রোজ এই সময়টাতে কলনীমোর চায়ের দোকানে অপেক্ষা করলেই ওদের দেখা পাওয়া যায়। এইতো হাটতেছে খুব গল্পে বিভোর, দুজন কথা বলার মাঝে হেসেই চলেছে। ওদের ভাবনায় হয়তো চারপাশ শূন্যতায় মুখরিত। ইচ্ছে করছে আমিও ওদের গল্পে ডুবে যাই, খুঁজতে চাই হাসির রহস্য, বুঝতে চাই দুজনের চোখ কি বলে একে অপরকে। হয়তো লিখতাম তবে ওদের মনের গহীন ভাব।
নাহ।। ওদেরকে জানার কৌতুহল যেন দিনদিন বেড়েই চলেছে।

মামা চা ঠান্ডা হয়ে গেছে তো ৷ ভাবনায় ইতি টানলাম । আরে হ্যা তো। আসলে মামা একটু অন্য ভাবনায় চলে গেছিলাম আপনি আমায় আরেক কাপ চা বানিয়ে দিন। আর এই কাপ নিয়ে যান। হাতঘড়িতে তাকিয়ে ০১:১০ । (মামা চা নেন) ধন্যবাদ দিয়ে সামনে তাকাতেই আবীর মায়া। ঠিক রাস্তার ওপারে। বাহ ওরা সারাক্ষণ এইভাবে হাসতেই থাকে? ফুটপাত থেকে দুজনে নামলো। ওরা চা খাবে? বাহ ভালোই হবে। আজ তাহলে খুব কাছথেকে ওদের গল্প শুনতে পাবো। দারুণ মজা হবে আজ। ঠিক তখনি আবীরের উপর থেকে সম্পূর্ণ গতিবেগ নিয়ে একটা ট্রাক খুবি নমনীয়তায় চলে গেলো। মাত্র কয়েক সেকেন্ড সময় নিলো।

ছেলেটার হাত শক্ত করে ধরে রেখেছে। কাঁদছেনা। একফোঁটা জল নেই চোখে। আসবেনা কান্না। কিভাবে কাঁদবে, প্রাণ থাকতেও যার মনের মৃত্যু ঘটে তার কান্না আসবেনা।

চা আজ নিরানন্দে পরিপূর্ণ।
আর ছুঁবোনা তোমায়।

 

সদর, পিরোজপুর। 

“বিনা অনুমতিতে এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা কপি করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ। কেউ যদি অনুমতি ছাড়া লেখা কপি করে ফেসবুক কিংবা অন্য কোন প্লাটফর্মে প্রকাশ করেন, এবং সেই লেখা নিজের বলে চালিয়ে দেন তাহলে সেই ব্যাক্তির বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বাধ্য থাকবে
ছাইলিপি ম্যাগাজিন।”

সম্পর্কিত বিভাগ

পোস্টটি শেয়ার করুন

Facebook
WhatsApp
Telegram
কবিতা-নিঃশব্দে কেউ

কবিতা-নিঃশব্দে কেউ

|আফসানা মীম   আমি যখন মনমরা হয়ে আকাশ দেখবো তখন নিঃশব্দে কেউ আসুক ঠিক যেমন দখিনা হাওয়া বয়ে যায়, চুপিচুপি আনমনে দিগবিদিক হয়ে! বৃষ্টি ভেজা ...
কবিতা - জললীলা

কবিতা – জললীলা

আদ্যনাথ ঘোষ জোয়ারে একা নামতে নেই জোয়ার পাগলামী জানে, চোখ ফুলে হয়ে যায় নদী। শ্রাবণের কান্নার ঢল, সন্নাসী চোখ, সন্ধ্যামাঠ, নৃত্যপাগল মন। তবু তার বৃষ্টির ...
প্রতিদান

প্রতিদান

জোবায়ের রাজু কুসুমের প্রতি সাজেদা খানের এত আদর ভালোবাসা দেখলে যে কেউ বলবে যে ,কুসুম সাজেদা খানের পেটের সন্তান। অথচ সত্য এই যে, সাজেদা খানের ...
সাবিকুর সিফাতের কবিতা

সাবিকুর সিফাতের কবিতা

আবার সাবিকুর সিফাত ধ‌রো বছর কু‌ড়ি প‌রে- আবার য‌দি আমা‌দের দেখা হয় মু‌খোমু‌খি,কোন পাল‌তোলা নৌকায় য‌দি দেখা হয় শর‌তের শুভ্র কাশ ব‌নে তখন কি তু‌মি ...
সবার জন্য ঈদ

সবার জন্য ঈদ

দিল মুহাম্মদ আপনার সন্তান পেয়ে খুশি ঈদের নতুন জামা, আপনার কাজের লোকের সন্তান হয়তো কাঁন্দে,মামা! পথেরধারে শিশু কাঁন্দে বঞ্চিতর দল আদর, এই ঈদে কি তাদের ...