রবীন্দ্রনাথ বাঙালী মুসলমান সমাজ [পর্ব – ২ ]

রবীন্দ্রনাথ  বাঙালী মুসলমান সমাজ [পর্ব – ২ ]

 |মিরাজুল  হক 

 

পর্ব – ২ :

 

( রবীন্দ্রনাথের দৃষ্টিভঙ্গি তে বাঙালী মুসলমানদের সামাজিক ও রাজনৈতিক অবস্থান ) 

 

এটা ঠিক যে রবীন্দ্রনাথের জন্ম হয়েছিল এক হিন্দু পরিবারে । জমিদার বাড়ীতে ।  সেই  “  জমিদারির বেশীর ভাগটাই ছিল অধুনা বাংলাদেশে – যাঁদের অধিকাংশ মুসলমান । তবে তাঁর ভাবনা চিন্তার সংগে গভীর একাত্মতা বোধ করার পথে কোনও বাধা হয় নি । রবীন্দ্রনাথ নিজেই তাঁর নিজের বাঙালী পরিবারকে , ‘ হিন্দু , মুসলিম ও ব্রিটিশ – এই তিন সংস্কৃতির সঙ্গমের ফল বলে বর্ণনা করেছেন । “ ৬

 

জমিদারি দেখাশোনার সুত্রে তিনি  মুসলমান প্রধান বাংলার বিস্তীর্ণ পল্লী -প্রকৃতি , জনজীবনের অভিজ্ঞতা অর্জন করেছিলেন । যেখানে বহুমাত্রিক রবীন্দ্রনাথকে  খুঁজে পাওয়া যায় এবং প্রকৃতি ও নিসর্গ  অনাবিল সৌন্দর্যের পাশাপাশি ,  শিলাইদহ – পতিসর , শাহজাদপুরের দুঃস্থ  গরীব মুসলমান  মানুষের জীবন গাথাও সমানভাবে উজ্জ্বল ।

 

এই  কর্ম সুত্রে তিনি বাঙালী মুসলমানদের সামাজিক ও রাজনৈতিক অবস্থান  , যে  গভীরতায় বিশ্লেষণ করেন ,  তা দেশের জাতীয় নেতারা উপলব্ধি করেন নি । চেষ্টাও করেন নি । কিংবা না – বোঝার চেষ্টা করে , এড়িয়ে গেছেন । রবীন্দ্রনাথ এই বাঙালী  মুসলমান সমাজের সঠিক ব্যাখ্যা করেন ।  প্রকৃতই  পর্যালোচনা । 

 

অবশ্যই যেহেতু কবি একজন মানুষ ।  চিরন্তন মানব । সেহেতু এই মানব সীমারেখা অতিক্রম করে কবি মনে উৎসারিত হয় , মানুষের চিরন্তন সুখ , চিরন্তন দুঃখ , চিরন্তন প্রেম , চিরন্তন অভয় ।             “ যেহেতু রবীন্দ্রনাথ কবি , এবং যেহেতু মুসলমান মানুষ , সেজন্য মুসলমান তার আজকের বিশেষ ঐতিহাসিক বিবর্তনের প্রভাবে বুঝুক আর নাই বুঝুক , রবীন্দ্রনাথ বাস্তবিকই তার পরম বন্ধু ব্যতীত আর কিছু না । “ ৭

ইংরেজরা ‘ চিরস্থায়ী বন্দোবস্তা ‘  দিয়ে জমিদার শ্রেণী সৃষ্টি করে । ইংরেজ শাসনের সুবিধার জন্য এই উচ্চবিত্ত শ্রেণীর সৃষ্টি । এরা ইংরেজদের  শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে ওঠে । মুসলমানদের প্রতি হিংসা ও নিন্দা করতে শিখল । সমাজ জীবনে ভেদনীতির চেতনা প্রবল হল । রবীন্দ্রনাথের উপলব্ধি হয় যে , এই জমিদারি ব্যবস্থার কারনে গরীব মুসলমানদের আর নীচে ঠেলে দেওয়া হয় । কিন্তু   “ যারে তুমি নীচে ফেল , সে তোমায় বাঁধিবে যে নীচে । “

 

 “ ঘরে মুসলমান আসিলে জাজিমের এক অংশ তুলিয়া দেওয়া হয় , হুঁকার জল ফেলিয়া দেওয়া হয় । মানুষকে ঘৃণা করার যে দেশে ধর্মের নিয়ম , প্রতিবেশীর হাতে জল খাইলে যাহাদের পরকাল নষ্ট হয় , পরকে অপমান করিয়া যাহাদিগকে জাতিরক্ষা করিতে হইবে , পরের হাতে চিরদিন অপমানিত না হইয়া তাহাদের গতি নেই । ইংরেজ সমস্ত ভারতবর্ষের কাঁধে  চাপিয়া বসিয়াছে , সে কি কেবল নিজের জোরে ? আমাদের পাপই ইংরেজের প্রধান বল ( ব্যাধি ও প্রতিকার , রবীন্দ্র রচনাবলী , দ্বাদশ খণ্ড ) । “ 

 

“ আমাদের দেশে যখন স্বদেশী আন্দোলন উপস্থিত হয়েছিল , তখন আমি তার মধ্যে ছিলাম । মুসলমানরা তাতে যোগ দেয় নি , বিরুদ্ধে ছিল । জননায়কের কেউ কেউ ক্রদ্ধ  হয়েছিলেন , বলেছিলেন ওদের একেবারে অস্বীকার করা যাক ; কিন্তু কেন তার যোগ দেয় নি ? ( প্রবাসী )  “ ৮

 

এই ‘ কেন ‘ – র উত্তর তিনি খুঁজে পেয়েছিলেন তাঁর জমিদারির সেরেস্তায় । জমিদারির বৈঠকখানায় যে সব মুসলমান প্রজারা প্রবেশের অধিকার পায় , তাদের জন্য বসার আলাদা ব্যবস্থা । ‘ জাজিম  ‘ খানিকটা তুলে রাখা হয় ।  বুঝিয়ে দিতে হয় , মুসলমান প্রজারা পৃথক । এই দূরত্বের ব্যবধান মুসলমান মেনে এসছে । হিন্দুরাও মেনে এসেছে । 

 

“ তারপর ওদের ডেকে একদিন বলেছি , ‘ আমরা ভাই , তোমাকেও আমার সংগে ক্ষতি স্বীকার করতে হবে । কারাবাস ও মৃত্যুর পথে চলতে হবে । তখন দেখি হঠাৎ অপর পক্ষ লাল টকটকে নতুন ফেজ টুপি মাথায় দিয়ে বলে , আমারা পৃথক । আমারা বিস্মিত হয়ে বলি , রাষ্ট্র ব্যাপারে পরস্পর পাশে এসে দাঁড়াবার বাধাটা কোথায় ? বাধা ঐ ‘ জাজিম ‘ তোলা আসনে বহু দিনের মস্ত ফাঁকটার মধ্যে । ওটা  ছোট নয় । ( প্রবাসী )  “ ৯  

 

এই জমিদারির কাজের সুত্রে , যুবক রবীন্দ্রনাথের  মানুষের সংগে মেলামেশা । তাই তাঁর লেখায় জীবনের প্রতিফলন । সাহিত্য তো আসমানি ফসল নয় । জমিদারির এই কর্মক্ষত্রে তিনি উপলব্ধি করেন সমাজে সম্পর্কের গভীরতা । হিন্দু মুসলিম প্রজাদের মনের পার্থক্য , তফাৎ । তাঁর বাস্তব এই বিশ্লেষণ শুধু সাহিত্য নয় ।  কেবল ‘ গোরা ‘ চরিত্রের অতি প্রয়োজনীয়তার দিক নির্দেশ নয় । তা বাস্তবিকই সমাজের আয়না। যেমন – 

“ উভয়ে চলিতে চলিতে এক জায়গায় নদীর চরে এক মুসলমান পাড়ায় আসিয়া উপস্থিত হইল । তখন রৌদ্র প্রখর হইয়াছে – বিস্তীর্ণ বালুচর , নদী বহুদূর । রমাপতি পিপাসায় ক্লিষ্ট হইয়া কহিল , ‘ হিন্দুর পানীয় জল পাই কোথায় ? “  ১০ 

 

একদা ‘ বন্দেমাতারম ‘ এবং হিন্দু-মুসলিম সম্পর্ক নিয়ে দেশ জুড়ে সাম্প্রদায়িকতা প্রকট হয় । তা রবীন্দ্রনাথকে বিচলিত করে । কবি জসীমুদ্দিনের কথায় , 

 

“ রবীন্দ্রনাথ আমাকে দেখলেই হিন্দু-মুসলমান সমস্যা লইয়া আলোচনা করিতেন । তিনি বলতেন , দেশলাইয়ের কাঠি জ্বালিয়ে দিলেই যে ঘরে আগুন লাগে , তার কারন সেই ঘরের মধ্যে বহুকাল আগুন সঞ্চিত ছিল । যারা বলতে চান , আমরা সবাই মিলেমিশে ছিলুম ভালো , ইংরেজ এসেই আমাদের মধ্যে আগুন ধরিয়ে দিল , তারা সমস্যাটিকে এড়িয়ে যেতে চান । 

 

একদিন   বন্দেমাতারম গানটি লইয়া কবির সংগে আলোচনা হইল । কবি  বলিলেন , ‘ বন্দেমাতারম গানটি যে ভাবে আছে , তোমরা মুসলমানেরা এ জন্য আপত্তি করতে পার । কারন এ গানে তোমাদের ধর্মমত ক্ষুন্ন হওয়ার যথেষ্ট কারন আছে । 

 

এরপর বন্দেমাতারাম গান লইয়া হিন্দু মুসলমানের মধ্যে খুব বিরোধ চলিতেছিল । ইহার অল্পদিন পরে কলকাতায় যখন সর্বভারতীয় জাতীয় মহাসভার কার্যকরী সমিতির অধিবেশন বসে , তখন বন্দেমাতরম গান ত্মুল আন্দোলন হয় । সেই সময় জহরলাল নেহেরু গানটি রবীন্দ্রনাথের কাছে পাঠাইয়াছিলেন । কবির পরামর্শের ফলে এ গানে আপত্তিজনক অংশটি কংগ্রেসের কোন অনুষ্ঠানে আর গীত হইবে না । ( ঠাকুর বাড়ীর আঙিনায় এবং রবীন্দ্র জীবনী ) “ ১১ 

 

রবীন্দ্র-সাহিত্যের পাঠকের  শ্রেনীভেদ আছে । দেশ কাল ও পরিবেশভেদে বিচিত্র পথে আবর্তিত হয় ।  বাস্তবিকই  বাঙালী মুসলমানের গনজাগরণে উৎস রবীন্দ্রনাথ । চেতনা ও স্বাধীনতার প্রেরনা । ১৯৬১ সালে রবীন্দ্র জন্মশতবার্ষিকী  বাঁধ ভাঙ্গা স্রোতে উদযাপিত হয় । রবীন্দ্র সঙ্গীত ও রবীন্দ্রনাথ নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হলে , একদল সাহসী বাঙালী ১৯৬৭ সালের পয়লা বৈশাখ , ঢাকার রমনার বটমূলে ভোরের সূর্যালোকে রবীন্দ্র সঙ্গীত দিয়ে জাতীয় সংস্কৃতির উদ্বোধন করেন । এই আন্দলনের নেতৃত্বে ছিলেন ওয়াহিদুল হক , জাহিদুর রহিম , সনজিদা খাতুন এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল তরুণ ।   

 

অবশ্য মুসলমানের ধর্ম বা ধর্ম-প্রবর্তক সম্বন্ধে কোন বিস্তৃত আলোচনা তিনি করেন নি । কোন ধর্ম সম্পর্কেই করেন নি । তিনি যে কবি – জগতের প্রাত্যহিক জীবনের সাহচর্য এবং আত্মার অনুভূতি , তাঁর জীবনের রাজপথ ।

    

তথ্য সুত্র – 

 

৬ । তর্কপ্রিয় ভারতীয় – অমর্ত্য সেন – পৃষ্ঠা ৮৮ । 

৭। বাংলার মুসলমানের কথা – কাজী আবদুল ওদুদ – পৃষ্ঠা ৬৩ । 

৮, ৯ । রবীন্দ্রনাথ মুসলমান চিন্তা – শামসুল আলম সাঈদ ( বাংলাদেশ ) পৃষ্ঠা -৭০ । 

১০ । হিন্দু মুসলমান সম্পর্ক – নিত্যপ্রিয় ঘোষ – পৃষ্ঠা ১৯৮ । 

১১ । রবীন্দ্রনাথ মুসলমান চিন্তা – শামসুল আলম সাঈদ ( বাংলাদেশ ) পৃষ্ঠা -৮৩ । 

 

রবীন্দ্রনাথ ও বাঙালী মুসলমান সমাজ [পর্ব-০১ ]

“বিনা অনুমতিতে এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা কপি করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ। কেউ যদি অনুমতি ছাড়া লেখা কপি করে ফেসবুক কিংবা অন্য কোন প্লাটফর্মে প্রকাশ করেন, এবং সেই লেখা নিজের বলে চালিয়ে দেন তাহলে সেই ব্যাক্তির বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বাধ্য থাকবে
ছাইলিপি ম্যাগাজিন।”

সম্পর্কিত বিভাগ

পোস্টটি শেয়ার করুন

Facebook
WhatsApp
Telegram
সাকিব হোসেন নাঈম এর কবিতা

সাকিব হোসেন নাঈম এর কবিতা

সাকিব হোসেন নাঈম তাফালবাড়ি ময়দানে একবার মাহফিল হইতে চলিল। খাদেম সাহেব বারেক মিয়াকে চান্দা তুলিতে বলিল। বারেক, সে যে অতিশয় বুড়ো হৃদরোগ আছে তার। এপর্যন্ত ...
রাইটার্স ব্লক বা লেখকের বন্ধ্যাত্ব কাটাবেন যেভাবে

রাইটার্স ব্লক বা লেখকের বন্ধ্যাত্ব কাটাবেন যেভাবে

ছাইলিপি ডেস্ক রাইটারস ব্লক একটি সাধারণ যন্ত্রণা যা অনেক লেখক তাদের কর্মজীবনের কোনো না কোনো সময়ে অনুভব করেন। এটি এমন একটি শর্ত যেখানে একজন লেখক ...
অচিনপুরের দেশে: পর্ব ২

অচিনপুরের দেশে: পর্ব ২

    (গৌতম সরকার)  রাত্রের দুঃস্বপ্ন কেটে অনিশ্চিতপুরে সকাল এলো নীলকণ্ঠ পাখির ডানায় ভর করে, চারদিকে আলোর রোশনায় দিনবদলের সঙ্কেত। ঝলমলিয়ে ওঠা জীবনগানে অমৃতসুধা যেন ...
আমরা শোকাহত

আমরা শোকাহত

সাদিয়া সাদি আমরা শোকাহত, হে মুজিব তোমার জন্য শোকাহত তুমি ছিলে স্বাধীন বাংলার উদ্দীপ্ত সূর্য। তুমি ছিলে হাজার বাঙালির শ্রেষ্ঠ নেতা, তুমি ছিলে বাংলা মায়ের ...
অন্তিম পর্ব- অচিনপুরের দেশে

অন্তিম পর্ব- অচিনপুরের দেশে

গৌতম সরকার লীলামাসীর মুখ নিঃসৃত সেই অমৃতবানী যে এত তাড়াতাড়ি বাস্তব রূপ নেবে ভাবতে পারিনি। সত্যি কথা বলতে কি, আমফানের রাত্রে যখন মঈদুলের হাত ধরে ...
ভালোবাসার দ্বিতীয় প্রহর [প্রথম পর্ব]

ভালোবাসার দ্বিতীয় প্রহর [প্রথম পর্ব]

লেখক- পার্থসারথি পড়ন্ত বিকেল। ছায়া ক্রমশ লম্বা হচ্ছে। রোদের প্রখরতা সরে গেছে অনেকক্ষণ। পাখিদের উড়াউড়ি আকাশের সীমানায় বেড়ে গেছে। মৃদু শান্ত হাওয়া নবপল্লবের চূড়ায় নেচে ...